ছাত্র অধিকার নিয়ে কথা বলার কেউ নাই, সবই পদ-পদবির রাজনীতি

 প্রকাশ: ১৯ মে ২০১৯, ০৫:৩২ অপরাহ্ন   |   শিক্ষা

ছাত্র অধিকার নিয়ে কথা বলার কেউ নাই, সবই পদ-পদবির রাজনীতি

আরিফ আহমেদ (রংপুর মহানগর)

ছাত্র রাজনীতি করতে গিয়ে অনেক ছাত্রই তাদের মুল্যবান সময় গুলো হারিয়ে ফেলেছে। ছাত্র রাজনীতিটাকে আজ স্বার্থের রাজনীতি করে ফেলতেছে। আজ যারা রাজনীতি করতে বেশ আগ্রহী তারাও এই পথে গিয়ে নিজেদের উজ্জ্বল ভবিষৎ অন্ধকারে ঢেলে দিচ্ছে। একজন ছাত্র সে রাজনীতি করবে সাধারন ছাত্রদের প্রতিনিধিত্ব করার জন্য কিন্তু রাজনীতি করে নিজের প্রভাবটাকে বৃদ্ধি করার জন্য। নিজেদের দৌড়াত্ব, নিজের ক্ষমতা এবং ছাত্র অবস্থায় আয়ের উৎস হিসাবে ছাত্র সংঘটনগুলো নিজেদেরকে জাগান দিচ্ছে।

ছাত্র অবস্থায় রাজনীতি করার সাধারন অর্থ হচ্ছে, পড়াশুনার পাশাপাশি ছাত্রদের  রাজনীতি শিক্ষার উদ্দ্যেসে করা এটাই ছিল মূল লক্ষ্য।  কেননা একসময় এরাই দেশের প্রতিনিধিত্ব'র হাল ধরবেন।  কিন্তু বর্তমান সময় তার উল্টো দেখা যাচ্ছে,

রাজনীতি করে কেউবা কোটিপতি আবার কেউবা অধিক ক্ষমতাবান অথবা কেউবা একাই একশ।


বর্তমান সময় ছাত্র রাজনীতি করে ঠিক কিন্তু ছাত্রদের অধিকার কিংবা দেশের সাধারন মানুষের অধিকার নিয়ে কথা বলার কোনো ছাত্র সংঘঠনকে খুজে পাওয়া যায়না। যদিও যায় কিন্ত তা খুবই নগন্য।


ছাত্র সংঘটনগুলো আজ অর্থের পিছনে ছুটছে ফলে সবাই যেন নেতা,  কর্মী পাওয়া দুস্কর। যে যত ক্ষমতাবান বা বেশি টাকার মালিক সে ততবেশি বড় পদ পায়। আর তাই আগে ক্ষমতা বা টাকার পিছনে ছুটে তারপর  পদ। মানে ছাত্র সংঘটনের জন্য পথ পাওয়ার জন্য আপনার ত্যাগ বা আপনার পরিশ্রম এগুলার মূল্যহীন। শুধু মাত্র তারাই ভালো পদ পাবে যাদের ক্ষমতা আর টাকা অনেক বেশি।

আগে ছাত্ররা আন্দোলন করলে, মিছিল নিয়ে বের হলে রাস্তা ভর্তি হয়ে যেতো ছাত্রদের উপস্থিতে কিন্তু এখন তা আর হয়না। আর যারাও যায় তাদের বাধ্য করিয়ে নিয়ে যায়। এভাবে চলতে থাকলে হয়তো রাজনীতি থেকে মেধাবীরা মুখ ফিরিয়ে নিবে।


তাইতো বলতে হয়, একটু জায়গা দেন মেধাবীরা রাজনীতি করুক। এই মেধাবীরাই একদিন দেশ চালাবে।


আরিফ আহমেদ, অধ্যায়নরত,কারমাইকেল কলেজ, রংপুর

শিক্ষা এর আরও খবর: