মুজিব জন্মশতবর্ষ ২০২০ এ ট্যারিফ কমিশন এর চেয়ারম্যান মুনশী শাহাবুদ্দীন আহমেদ এর দুই বই "বঙ্গবন্ধুর ১০০ ভাষণ" এবং "বঙ্গবন্ধুর ৬ দফা - বাঙালির মুক্তির সনদ "

 প্রকাশ: ০৯ নভেম্বর ২০২০, ১২:১১ অপরাহ্ন   |   সাক্ষাৎকার

মুজিব জন্মশতবর্ষ ২০২০ এ ট্যারিফ কমিশন এর চেয়ারম্যান মুনশী শাহাবুদ্দীন আহমেদ এর দুই  বই "বঙ্গবন্ধুর ১০০ ভাষণ" এবং "বঙ্গবন্ধুর ৬ দফা - বাঙালির মুক্তির সনদ "



মুনশী শাহাবুদ্দীন আহমেদ বর্তমানে প্রেষণে বাংলাদেশ ট্রেড এন্ড ট্যারিফ কমিশনের  চেয়ারম্যান এর দায়িত্বে আছেন। বর্তমান পদে যোগদানের পূর্বে তিনি কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব হিসেবে কর্মরত ছিলেন। ছিলেন ভূমি সংস্কার বোর্ডের চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত সচিব)।

জাতির পিতার প্রতি যথাযথ মর্যাদা প্রদর্শন, তাঁর স্বপ্ন এবং আদর্শের যথাযথ বাস্তবায়ন, পরবর্তী প্রজন্মের নিকট তাঁর আদর্শ পৌঁছে দেয়া , সর্বোপরি তাঁর প্রতি ব্যক্তিগত ঋণ পরিশোধের ক্ষুদ্র প্রয়াস মুনশী শাহাবুদ্দীন আহমেদ এর  "বঙ্গবন্ধুর ১০০ ভাষণ" এবং "বঙ্গবন্ধুর ৬ দফা - বাঙালির মুক্তির সনদ "  নামের এ দুটি বই।

মুনশী শাহাবুদ্দীন আহমেদ মনে করেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদেরকে দিয়েছেন স্বাধীনতা এবং উন্নত জীবনের স্বাদ আস্বাদনের পথনির্দেশ। বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিয়েছেন ২০৪১ সালে বাংলাদেশকে উন্নত বিশ্বে রুপান্তর এর সঠিক নির্দেশনা।

মুনশী শাহাবুদ্দীন আহমেদ "বঙ্গবন্ধুর ১০০ ভাষণ" বইটি উৎসর্গ করেছেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। এবং "বঙ্গবন্ধুর ৬ দফা- বাঙালির মুক্তির সনদ" বইটি উৎসর্গ করেছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানাকে।


মুনশী শাহাবুদ্দীন আহমেদ  বলেন , ১৯৭০ সালের নির্বাচনে দৃষ্টিশক্তি স্বল্পতার জন্য  আমার দাদী শাহিদা বেগম আমাকে সাথে নিয়ে বলেছিলেন  "শেখ মুজিবের নৌকায় ভোট দাও" --- যা ছিল আমার জীবনের প্রথম ভোট দেয়া । তিনি আমাকে সবসময় উৎসাহিত করতেন লেখাপড়া করতে, সৎ পথে চলতে।



"মুজিব জন্মশতবর্ষ ২০২০"--- এ প্রকাশিত বই দুটির প্রকাশক: এইচ এম ইব্রাহিম খলিল,  ন্যাশনাল পাবলিকেশন্স । রকমারী.কম এ পাওয়া যাবে বই দুইটি।



উল্লেখ্য, মুনশী শাহাবুদ্দীন আহমেদ ১৯৬২ সালে গোপালগঞ্জ জেলার কাশিয়ানী উপজেলার রাতইল গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। সিভিল সার্ভিসে বর্ণাঢ্য জীবনের অধিকারী মুনশী শাহাবুদ্দীন আহমেদ ১৯৬২ সালের ৬ নভেম্বর গোপালগঞ্জের কাশিয়ানি উপজেলার রাতাইল গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন মুনশী শাহাবুদ্দীন আহমেদ। তার পিতার নাম আমজাদ হোসেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে লোক প্রশাসনে ১৯৮৪ সালে সম্মানসহ এমএসএস ডিগ্রি অর্জন করেন।

মুনশী শাহাবুদ্দীন আহমেদ  ১৯৮৫ সালের সপ্তম ব্যাচের ক্যাডার হয়ে সরকারি চাকরিতে যোগদান করেন।  সরকারি যানবাহন অধিদপ্তরের পরিবহন কমিশনার, স্থানীয় সরকার বিভাগে যুগ্মসচিব, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, ঠাকুরগাঁও ও মানিকগঞ্জের জেলা প্রশাসক, তৎকালীন সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ের এপিডি উইং-এ উপসচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া তিনি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং উপজেলা ম্যজিস্ট্রেট হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।



মুনশী শাহাবুদ্দীন আহমেদ স্কাউটিং এর সাথে সক্রিয় রয়েছেন। তিনি বাংলাদেশে রৌপ্য ইলিশ পদক অর্জন করেন এবং বর্তমানে বাংলাদেশ স্কাউটসের ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন। তাঁর স্ত্রী এবং তিন পুত্রও স্কাউটিং এর সাথে জড়িত আছেন।


আমজাদ হোসেন মুনশী ও রোকেয়া বেগমের পুত্র মুনশী শাহাবুদ্দীন আহমেদ। তাঁর সহধর্মিনী মারিয়া ইয়াসমিন পেশায় একজন ডাক্তার।


মোটরযান ও হ্যান্ডবুক ফর এসি (ল্যান্ড) তার অন্যতম প্রকাশনা।

শাহাবুদ্দীন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ভারত, দক্ষিণ কোরিয়া, সিঙ্গাপুর, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, ভিয়েতনাম, ফিলিপাইন, চীন, জাপান, থাইল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া ও পৃথিবীর অন্যান্য বিভিন্ন দেশ ভ্রমণ করেন।




সাক্ষাৎকার এর আরও খবর: