বাজার থেকে কেনা পণ্য যেভাবে ভাইরাসমুক্ত করবেন

 প্রকাশ: ০৪ এপ্রিল ২০২০, ১২:০১ অপরাহ্ন   |   বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

বাজার থেকে কেনা পণ্য যেভাবে ভাইরাসমুক্ত করবেন

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ভয়ে আতঙ্কিত হওয়ার পাশাপাশি বদলে ফেলতে হয়েছে আমাদের দিনযাপনের রুটিন। সংক্রমণের ভয়ে বাসায় স্বেচ্ছাবন্দি হয়ে থাকছেন মানুষ। কিন্তু নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস কেনার জন্য বাজারে না গিয়ে উপায় নেই। আবার বাজার থেকে আনা জিনিসগুলো জীবাণুমুক্ত কি-না তা নিয়েও বাড়ছে উদ্বেগ।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মানুষের হাঁচি-কাশির সঙ্গে বের হওয়া সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম কণার মধ্যে ভরা থাকে এই ভাইরাস। হাঁচি-কাশির মাধ্যমে সেগুলো আক্রান্ত মানুষের শরীর থেকে বেরিয়ে বাতাসে মেশে। কেউ ওই বাতাস নিঃশ্বাসের সঙ্গে টেনে নিলে বা সেই ভাইরাসযুক্ত কণাগুলো যেসব জায়গায় পড়ছে সেসব স্থান হাত দিয়ে স্পর্শ করে সেই হাত নিজের মুখে দিলে এ ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটবে তার মধ্যে।


বাজারে এবং কোনো জনসমাগমস্থলে অন্য লোকের কাছাকাছি আসার মাধ্যমে করোনার ঝুঁকি বাড়ছে। এ কারণে সামাজিক দূরত্ব অর্থাৎ অন্য মানুষের থেকে অন্তত দুই মিটার (প্রায় ছয় ফুট) দূরত্বে থেকে জরুরি চলাফেরা করতে বলা হচ্ছে।

লন্ডনের স্কুল ফর হাইজিন অ্যান্ড ট্রপিকাল মেডিসিনের অধ্যাপক স্যালি ব্লুমফিল্ড বলেন, ‘ভাইরাস ছড়ানোর একটা উর্বর ক্ষেত্র হলো বাজার। বাজারে আপনি যেসব পণ্যে কিনছেন সেগুলো আপনার আগে আরও অনেকে নাড়াচাড়া করেছে। যেখানে টাকা দিচ্ছেন সেখানে আরও লোকের হাত পড়েছে। নগদ অর্থে দাম পণ্য কিনলে যে খুচরা ফেরত দেওয়া হচ্ছে সেগুলোও কিছুক্ষণ আগে অনেক হাত ঘুরে এসেছে। আপনি যদি এটিএম মেশিন থেকে পয়সা তুলে থাকেন, সেখানেও মেশিনের বোতামে আপনার আগে কারো হাত পড়েছে। এরপর রয়েছে বাজারে আপনার ধারেকাছে দাঁড়ানো মানুষরা।’


অধ্যাপক স্যালি ব্লুমফিল্ডের পরামর্শ, ‘বাজারে যাওয়ার আগে ও বাজার থেকে ফিরে এসে সাবান ও পানি দিয়ে ২০ সেকেন্ড ধরে ভালো করে হাত ধোবেন বা অ্যালকোহলযুক্ত হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে হাত পরিষ্কার করবেন। সুযোগ থাকলে নগদ অর্থ ব্যবহার না করে কার্ড ব্যবহার করবেন। তবে কার্ড ব্যবহারের ক্ষেত্রেও কিছুটা ঝুঁকি আছে। তাই কার্ড ব্যবহারের সময় দোকানের কলম ব্যবহার বা পিন নম্বর দেওয়ার জন্য বোতাম চাপতে হলে পাওনা চুকিয়ে দেবার পর হাত ভাল করে ধুয়ে ফেলতে হবে।’


অধ্যাপক স্যালি ব্লুমফিল্ড আরও বলেন, ‘রান্না খাবারের মাধ্যমে কোভিড-১৯ সংক্রিমণের ঝুঁকি নেই। তবে কাঁচা শাকসবজি, ফলমূলের ক্ষেত্রে ঝুঁকি থাকে। এগুলো সবকিছু ভালো করে কলের ঠাণ্ডা পানিতে ধুয়ে শুকিয়ে তারপর সেগুলো ব্যবহার করবেন।


আর প্লাস্টিকের প্যাকে, টিনে বা কাঁচের পাত্রে বিক্রি হচ্ছে এমন কিছু কিনলে সেগুলো ৭২ ঘণ্টা না ছুঁয়ে সরিয়ে রেখে দেবেন। সঙ্গে সঙ্গে ব্যবহার করতে চাইলে সেগুলো জীবাণুমুক্ত করার তরল পদার্থ (ব্লিচ জাতীয় ডিসইনফেকেটন্ট) দিয়ে মুছে নিন। তবে কড়া ব্লিচ ব্যবহার করবেন না। বোতলের গায়ে দেখে নেবেন কতটা পরিমাণ পানি মিশিয়ে তা হালকা করে নিতে হয়।’


অনলাইন শপগুলোর বাসায় পৌঁছে দেওয়া খাদ্যসামগ্রী এক অর্থে ঝুঁকি কমায়, কারণ এক্ষেত্রে লোকের ভিড়ে যেতে হয় না। কিন্তু এক্ষেত্রেও ঝুঁকি আছে। অনলাইন শপের ডেলিভারি দেওয়া পণ্য অন্য কেউ হাত দিয়ে নাড়াচাড়া করেছে কি-না, যে ব্যাগ বা বাক্সে করে বাজার আনা হয়েছে সেগুলো কারা ধরেছে এবং যে ড্রাইভার হাতে করে বাজার পৌঁছে দিচ্ছে তিনি সংক্রমিত বা জীবাণু বহন করছে কি-না এসব ভাবার বিষয়।


এক্ষেত্রে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ, ‘যে বাজার নিয়ে এসেছে তাকে নিরাপদ দূরত্ব থেকে বাজারের ব্যাগ নামিয়ে চলে যেতে বলুন। কেনা জিনিসগুলো কাঁচা বাজার হলে কলের ঠান্ডা পানিতে সেগুলো ধুয়ে শুকিয়ে তুলে রাখুন। আর বোতল, প্যাকেট বা টিন হলে জীবাণুমুক্ত করার জন্য ঘরে ব্যবহারযোগ্য ব্লিচ পাতলা করে গুলে সেগুলো মুছে নিন। খেয়াল রাখবেন ব্লিচ যেন খাদ্যদ্রব্য স্পর্শ না করে।’


ইংল্যান্ডের ওয়ারইক মেডিকেল স্কুলের ড. জেমস গিল বলেন, ‘বাসার কাজে ব্যবহার করা যায় এমন ব্লিচ সঠিক মাত্রায় ব্যবহার করলে এক মিনিটের মধ্যে ভাইরাস নিষ্ক্রিয় করা সম্ভব হয়।‘


বাইরে থেকে অর্ডার দিয়ে কেনা খাবারের বিষয়ে অধ্যাপক ব্লুমফিল্ড বলছেন, ‘রান্না করা গরম খাবার, যদি তা স্বাস্থ্যসম্মতভাবে প্রস্তুত করা হয় এটা থেকে কোনো ঝুঁকি থাকে না। তবে এক্ষেত্র গরম খাবার কিনবেন ও বাসি খাবার ভালো করে গরম করে খাবেন, যাতে কোনো জীবাণু থাকলে গরম করার সময় মরে যায়।’


তিনি আরও বলেন, ‘বাজার থেকে খাবার যে প্যাকেট বা বাক্সে করে আসবে, সেগুলো ঘরে আনার সঙ্গে সঙ্গে বিনে ফেলে দিন ও খাবার গরম করে খান। খাবার আগে অবশ্যই বিশ সেকেন্ড ভালো করে হাত ধুয়ে নিন।’



বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি এর আরও খবর: