ট্রাম্প পরিবারের সাবেক চালক এখন বন্দী আইসের হাতে

 প্রকাশ: ০৭ এপ্রিল ২০১৯, ০৪:০০ অপরাহ্ন   |   লাইফস্টাইল

ট্রাম্প পরিবারের সাবেক চালক এখন বন্দী আইসের হাতে

জলটান টামাস প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প পরিবারের গাড়ির চালক ছিলেন। কিন্তু এই পরিচয়ও তাঁকে ইমিগ্রেশন অ্যান্ড কাস্টমস এনফোর্সমেন্ট (আইস) এজেন্টদের হাত থেকে বাঁচাতে পারেনি। গত আট মাস ধরে জলটান টামাসের ঠিকানা আইসের বন্দীশালা। 

গত ২৯ মার্চ প্রকাশিত নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, জলটান টামাস ২০১১ সালে রোমানিয়া থেকে বৈধভাবে আমেরিকায় এসেছিলেন। তিনি ফ্লোরিডায় ট্রাম্পের গলফ ক্লাব জুপিটারে কাজ করতেন। ট্রাম্পের পারিবারিক গাড়ি চালক হিসেবেও কাজ করেছেন তিনি। কিন্তু গত বছর হঠাৎ করেই তাঁকে আইস এজেন্টরা ডেকে পাঠান। বলা হয় তাঁর সঙ্গে তাঁর আমেরিকায় অবস্থানের বৈধতা বিষয়ে আলোচনা করা হবে। সেখানে তাঁকে জানানো হয়, ২০১৩ সালে জলটান রোমানিয়ায় গিয়েছিলেন। ফেরার সময় তিনি আর বৈধভাবে আমেরিকায় প্রবেশ করেননি।

জলটান টামাস একজন গ্রিনকার্ডধারী। ২০১৬ সালে তিনি নাগরিকত্বের আবেদন করেন। সে সময় তাঁর বিষয়ে খোঁজ করতে গিয়ে জানা যায় যে, তিনি বিমা জালিয়াতির দায়ে রোমানিয়ায় দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি। তাঁর অনুপস্থিতিতেই তাঁকে দণ্ডিত করা হয়। এই দায়েই ২০১৮ সালে তাঁকে আটক করে আইস।

জলটান টামাসের আইনজীবী মারিও উরিজার টামাসকে রোমানিয়ায় ফেরত পাঠানোর আবেদন করেছেন। যদিও আইস চায় টামাসকে তাঁর অপরাধের জন্য আটক রাখতে। এ বিষয়ে উরিজার সিএনএনকে বলেন, ‘সাধারণত এ ধরনের অভিযোগকে আমেরিকায় পুরোপুরি বিশ্বাস করা হয় না। এ ধরনের ঘটনা খুবই বিরল। এ কারণে টামাসকে তাঁর দেশে ফেরত পাঠিয়ে বিষয়টির মীমাংসা করা উচিত। আমার মনে আইস অহেতুক বিষয়টিকে জটিল করে তুলছে। টামাস এখানে বহু বছর ধরে আছেন। তিনি এখানে বৈধভাবে ছিলেন এবং নিয়মিত কর পরিশোধ করেছেন। তাঁর বিরুদ্ধে কোনো অপরাধে জড়িত হওয়ার অভিযোগও নেই।’

এ বিষয়ে আইসের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তারা কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি বলে জানিয়েছে সিএনএন।

নিউইয়র্ক টাইমস জানায়, ২০১৩ সালে জুপিটার ক্লাবে কাজ শুরু করেন টামাস। সেখানে তিনি প্রথমে নিরাপত্তা কর্মী ও পরে পরিবহন কর্মী হিসেবে কাজ করেন। পরে ট্রাম্পের সন্তানদের আনা-নেওয়ার কাজ করতেন তিনি। টামাসের স্ত্রী রোমানিয়া থেকে আসা এবং বর্তমানে মার্কিন নাগরিক অ্যালিনা রোগোজান জানান, ২০১৬ প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময় ট্রাম্পের প্রচারশিবিরের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের আনা-নেওয়ার কাজও করেছেন টামাস। এ কাজের জন্য তাঁকে নিরাপত্তা ছাড়পত্র নিতে হয়েছিল। এর আগে নিরাপত্তাকর্মী হিসেবে কাজ করার সময় তিনি আগ্নেয়াস্ত্র বহনের অনুমোদনের আবেদন করেন, যা গ্রাহ্য হয়েছিল। বলার অপেক্ষা রাখে না এ জন্যও নিরাপত্তা ছাড়পত্রের প্রয়োজন হয়। এত কিছুর পর তাঁকে এভাবে আটক করাতে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন টামাসের আইনজীবী।

এখন এই পরিস্থিতি থেকে মুক্ত করার জন্য টামাসের পরিবার ট্রাম্পের সন্তানদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করছে। জলটান টামাস বিশেষত ইভানকা ট্রাম্প ও তাঁর জামাতা জ্যারেড কুশনারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে চান। জলটান টামাসের পরিবারে তিনি ছাড়া বাকি সবাই আমেরিকার নাগরিক। পুরো পরিবারটি ২০১১ সালে রোমানিয়া থেকে ডিভি লটারি পেয়ে আমেরিকায় এসেছিল।

এ বিষয়ে ট্রাম্প অর্গানাইজেশনের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করে সিএনএন। কিন্তু এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি প্রতিষ্ঠানটি।

লাইফস্টাইল এর আরও খবর: